মহামায়া লেকে রাতে ক্যাম্পিং, ভোরে কায়াকিং

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে বিজয় দিবসের ছুটি কাটাতে গিয়েছিলাম আমরা ছজন,
আমরা সরাসরি মিরসরাইয়ের ঠাকুরদিঘী বাজারে নামি,ওখান থেকে কয়েক মিনিট হাঁটলেই পাবেন মহামায়া,
আমাদের আগেই কায়াকিং পয়েন্টের ভাইয়াদের সাথে ফোনে কথা বলে বুকিং দেয়া ছিল,
আমরা যাওয়ার পরপরই তাঁবু,হ্যামোক,ক্যাম্প ফায়ারিং সব স্টার্ট করা হয়,আপনারা বলে দিলে আগেই করে রাখবে ভাইয়ারা 
তারপর সারারাত হ্যামোকে শুয়ে তারা দেখা,গান,নাচ,আড্ডা,বারবিকিউ পার্টি,আগুনের খেলা আর ওখানকার রানা ভাই- সাইদুল ভাইয়ের আথিতেয়তায় যে কেমন করে রাতের ৪.৩০ টা বেজে গেল আমরা টেরই পাই নি,
তারপর কিছু সময় রেস্ট করার পর একদম ভোরে ভোরে আমরা শুরু করি কায়াকিঙ।
কুয়াশা কেটে কেটে বাংলার ২য় বৃহত্তম কৃত্রিম হৃদে কায়াকিং করার অনুভূতি ছিল অসাধারণ।।😊😊😊
আমাদের প্যাকেজ ছিল ওখানে,
১।তাঁবু,হ্যামোক,ক্যাম্প ফায়ারিং
২।রাতের খাবার– ভাত,ভর্তা,সবজি,মুরগি
৩।বারবিকিউ মুরগি(১/৪ th per person), পরটা,কফি
৪।সকালে– পরটা,সবজি,ডিম ভাজি
এই পুরো প্যাকেজ পরেছিল জনপ্রতি ৪৫০ টাকা
আর কায়াকিং এ স্টুডেন্ট হিসেবে খরচ জনপ্রতি ১০০ টাকা( ১ বোটে ২ জন বসে)
গেলে ভাইয়ের সাথে আগে থেকে কথা বলে গেলে ভাল হয়।
ভাইদের নাম্বার—
সাইদুল ভাই—০১৬১৯৩৯৯৯১৫
রানা ভাই–০১৬১৬৭৯৬৯৬৯
#Happy touring☺☺☺
ওহ স্যরি বলতে ভুলে গেছি– মেয়েরা কায়াকিং করতে পারবে,বাট রাতে ক্যাম্পিং এ স্টে করতে পারবে না।।।

Post Copied From:Rabiul Hasan Sany‎>Travelers of Bangladesh (ToB)

মহামায়া লেক,ঠাকুরদিঘী

মিরসরাইয়ের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ এই মহামায়া লেক। চারদিকে পাহাড় আর লেকের অপরূপ সৌন্দর্য,সাথে স্বচ্ছ নীলচে পানি মুগ্ধ করার মতো। লেকের ওপাড়ে রয়েছে পাহাড়ি ঝর্ণাধারা।

কীভাবে যাবেন :

চট্টগ্রামের অলংকার কিংবা একে খান বাস স্ট্যান্ড থেকে ঢাকাগামী কোনো লোকাল বাসে উঠে পড়বেন। ভাড়া ৮০-১০০ টাকা পড়বে। মিরসরাই অতিক্রম করে একটু সামনে ঠাকুরদিঘী পাড়ে এই লেকটি। ড্রাইভারকে “মহামায়া লেক” বললেই ওরা স্পেসিফিক জায়গায় নামিয়ে দিবে। সেখান থেকে রিক্সা কিংবা সিএনজি করে লেকের পাড়ে চলে যেতে পারবেন। গেইটে টিকেট এন্ট্রি ১০ টাকা।

করণীয় :

লেকের আশেপাশে তেমন ভালো মানের কোনো রেস্টুরেন্ট নেই। তাই কিছু ড্রাই ফুড আর খাবার পানি সাথে নিয়ে রাখবেন। ফ্রেন্ড সার্কেল নিয়ে গেলে একসাথে টীম হয়ে থাকার চেষ্টা করবেন। লেকে কায়াকিং করতে চাইলে খরচ পড়বে ৩০০ টাকা। আর ফ্যামিলি নিয়ে গেলে সেক্ষেত্রে বোটে ঘুরে আসা যাবে পুরো লেকটি। তখন খরচ প্রায় ৮০০-১০০০ টাকা পড়বে।

খুব ভোরে কিংবা বিকেল সময়টা বেস্ট লেকের আশেপাশে ঘুরে দেখার জন্য। যারা পাহাড়ে ট্র্যাকিং কিংবা লেকের ভিউ পছন্দ করেন, তাদের জন্য এটি নিঃসন্দেহে একটি চমক বটে। হ্যাপি ট্রাভেলিং 🙂

Post Copied From:সুমিত পাল‎>Travelers of Bangladesh (ToB)

মিশন_চিটাগাং

একদিনে ঘুরে আসুন চিটাগাং এর বিখ্যাত তিনটি জায়গা থেকে, মহামায়া লেক, গুলিয়াখালি সি বীচ, বাশবাড়িয়া সি বীচ।

যে ভাবে যাবেন।
আমাদের ট্যুর প্লানটা তুলে ধরছি।
রাত দশটার গাড়িতে ঢাকা আবদুল্লাহপুরর থেকে উঠি এনা পরিবহন করে ফেনী জেলা শহরে আসি রাত ৪:৩০ মিনিট। এনা পরিবহন বাস কান্টারে সকাল ৬ পযন্তত থাকি। ৬ টার পর কান্টার থেকে বের হয়ে ২ মিনিট হেটে চলে আসি মহিপাল, সেখান থেকে চিটাগাং এর বাসে উঠে পড়ি গন্তব্য মিরসরাই মহামায় লেক। সকাল ৭:১৫ মিনিট পৌঁছে যায় মহামায়া লেক।
প্রস্তুত কায়াকিং করার জন্য, কেননা কায়ারিং বিজনেস ম্যান শামিম ভাই এর সাথে আগেই কথা হয়েছিল আমরা সকাল সকাল কায়ারিং করবো। ৮ টার মধ্যে শুরু হয়ে গেল আমাদের কায়ারিং ১ ঘন্টা কায়ারিং করে সকাল দশটায় চলে এলাম সিতাকুন্ড বাজার সেখান থেকে সিএনজি করে চলে এলাম গুলিয়াখালি সি বীচ, দেখলাম প্রকৃতির খেলা করলাম সাগরে ঝাপাঝাপি বসে থাকলাম অনেক সময় বীচের সবুজ ঘাসে। দুপুরের পর চলে আসলাম সিতাকুন্ড বাজার, সেখান থেকে গাড়ি করে বাশবাড়িয়া বাস স্টান, বাস স্টান থেকে সিএনজি করে বাশবাড়িয়া ঘাট ঘন্টা খানিক সময় কাটিয়ে চলে গেলাম ট্যুর লিষ্টে বাহিরে রাখা কুমিরা ব্রীজ দেখতে, এরপর রাত ৬ টায় উঠে বসলাম ঢাকার গাড়িতে।

খরচ কেমন হলো
ঢাকা টু ফেনী ৩০০ টাকা ফেনী টু মিরসারাই ৫০ টাকা কায়ারিং ২০০ টাকা ১ ঘন্টা স্টুডেন্ট ছিলাম বিধায়, নয়তবা ১ ঘন্টা ৩০০ টাকা। মিরসরাই টু সিতাকুন্ড ৩০ টাকা, সিতাকুন্ড বাজার টু গুলিয়াখালি বীচ রিজাব সিএনজি ১৩০ টাকা, আবার সিতাকুন্ড বাজার ফিরে আসতে ১৩০ টাকা, সিতাকুন্ড বাজার টু বাশবাড়িয়া বাস স্টান ১৫ টাকা এরপর সিএনজি করে বাশবাড়িয়া ঘাট জনপ্রতি ২০ টাকা,আবর বাশবাড়িয়া বাস স্টান ২০ টাকা, বাশবাড়িয়া থেকে শহর ২০ টাকা, এরপর ৬ টার গাড়িতে ঢাকা শ্যামলি পরিবহন ভাড়া ৪৮০ টাকা।

সকাল ও দুপুর ও বিকাল এর খাবার খরচ ২২০ টাকা
সর্বমোট খরচ হয়েছে আসা যাওয়া। ১৬১৫ টাকা।
এই দীর্ঘ ট্যুর প্লান লেখালেখিতে কিছুটা পরিবতন করা হয়ছে বিভিন্ন জায়গা।
এটা ছিল আমার ৪১ তম জেলা সফর।
আমি ঘুরি সারা বাংলাদেশ মিশন ৬৪ জেলা।

Post Copied From:

চরম মায়াময় মহামায়া লেক

যেভাবে যাবেন : -ঢাকা-চিটাগণ রোডে মিরসরাইয়ের আগে এই লেকটির অবস্থান

যারা সময় সুযোগের অভাবে বগা লেকে যেতে পারেন নাই তারা খুব সহজেই এই লেকটি দেখে আস্তে পারেন……… এটি বগার চাইতে আয়তনে অনেক বড় এবং বগার মতই পাহাড়ি লেক তবে পার্থক্য হচ্ছে বগা পরিপূর্ণ প্রাকৃতিক লেক………
বিঃদ্রঃ গ্রুপে ইন্ডিয়া এর বিশেষ করে কাশ্মীর, সিমলা, দার্জিলিং এর ছবি দেখতে দেখতে যারা বিরক্ত তাদের জন্য বিশেষ করে………

Post Copied From:Rezwanul Kabir‎>Travelers of Bangladesh (ToB)

মহামায়া লেক মিররসরাই।

ঘুরে আসলাম মহামায়া লেক মিররসরাই।
ঢাকা চট্রগ্রাম হাইওয়ে থেকে মাত্র দুই কিঃমিঃ ভিতরে।
খুবই সুন্দর আর পরিপাটি।
সাথো কায়াকিং।
নরমালি একঘন্টা ৩০০টাকা
আর স্টুডেন্ট হলে ২০০ টাকা।
একটাতে দুইজন।
লেক টা দেখার মত সুন্দর, পাশেই আছে ঝরনা।
যাওয়া
চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী যে কোন বাস
( একে খান টু ঠাকুরদিঘী বাজার ৫০টাকা।)
মিররসরাই ঠাকুরদিঘী বাজার, তারপর সিএনজিতে একজন ১৫ টাকা করে দুই কিঃমিঃ হাতের ডানে গেলেই মহামায়া লেক।

Post Copied From:Sheikh Lutfur Rahman Tushar‎>Travelers of Bangladesh (ToB)